সরিষাবাড়ীতে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার এলইডি লাইটের ঝুঁকিতে অন্যান্য যানবহন


মো: রেজাউল করিম, সরিষাবাড়ী (জামালপুর) প্রতিনিধি : আধুনিক বিশ্ব যোগাযোগ ব্যবস্থা ছাড়া অচল, যোগাযোগ ব্যবস্থা আরো আধুনিক সময় উপযোগী করে গড়ে তোলার নানা রকম পদক্ষেপ গ্রহন করা হচ্ছে।

আধুনিক সভ্যতার সুচিত হয়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নের মধ্যদিয়ে। তেমনি আবার সরিষাবাড়ীতে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার এলইডি লাইটে বাড়ছে দূর্ঘটনার ঝুঁকি নগর জীবন থেকে শুরু করে গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার রয়েছে নানা রকম যানবাহন, বর্তমান সময় গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার অন্যতম মাধ্যম হল ব্যাটারী চালিত অটো রিক্সা। যা দৈনন্দিন জীবনযাত্রা ও যোগাযোগে নব অধ্যায় উদিত হয়েছে, উন্নয়নের সহায়ক ভূমিকা রাখছে।

 কিন্তু বর্তমানে বিশেষ করে মফ:স্বল ও গ্রামীণ যোগাযোগ ব্যবস্থার অটোরিক্সার এলইডি হেডলাইটের আলো বড় আপদ হয়ে দেখা দিয়েছে। কেননা রাতের বেলা ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার ব্যবহৃত এলইডি হেডলাইট ব্যবহার হওয়ার ফলে বিপরীত দিক থেকে চলাচল করা অন্যান্য গাড়ী, মটরসাইকেল, দ্বি-চক্রযান এলইডি (ঝাপসা) হেড লাইটের কড়া আলোয় কিছুই দেখতে পাওয়া যায়না, এর ফলে দূর্ঘটনার আশঙ্কা থাকে। জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে শহর এবং গ্রামের ব্যাপকভাবে ব্যাটারীচালিত অটোরিক্সার ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

যার ফলে শহর ও গ্রামে তৈরী হয়েছে অত্যধিক যানজট এবং রাতের বেলা শহর এবং আশপাশের এলাকায় এসব যানবাহনের এলইডি হেডলাইটের কারণে রাতের বেলা চলাচল করা দুঃসহ হয়ে উঠেছে। কারণ এলইডি হেডলাইটের তীব্র আলো বিপরীত দিক থেকে আসা যান সড়কের প্রকৃত অবস্থান বুঝতে না পারায় বড় ধরণের দূর্ঘটনা ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। অটোরিক্সা চালক রিপন মিয়া বলেন, অটোর আসল হেডলাইট ব্যবহার হলে (চার্জ) খরচ বেশী হয়, হেডলাইডের বাল্ব নষ্ট হলে হেডলাইট ব্যবহার করা হয়, ফলে কম খরচে বেশী লাভ করা যায়।

এলইডি লাইট রাতে ব্যবহারে সামনে কোন অটো আসলে শুধু ঝাপসা দেখা যায়, তখন দূর্ঘটনা এড়াতে ধীরে গাড়ী চালানো হয়। একজন মোটরসাইকেল আরোহী জাহিদ হাসান জানান, অটোর অত্যাচারে রাতে মোটরযান চালানো খুব অসুবিধা, সামনে অটো আসলে হেড লাইটের আলোয় কিছুই দেখা যায় না, চোখ একদম ঝাপসা হয়ে আসে। এখন অনেকেই মোটরসাইকেল, পিকআপ, ভ্যানে ওই তীব্র ঝাপসা এলইডি লাইট ব্যবহার করেন। দূর্ঘটনা এড়াতে তীব্র ঝাপসা এলইডি লাইটের ব্যবহার অবিলম্বে বন্ধ করা এবং এ বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহন করার জন্য কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন সাধারন মানুষ। 

No comments

Powered by Blogger.