সরিষাবাড়ীতে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লাগামহীন দুর্নীতি বেড়েই চলেছে


রাশেদুল ইসলাম (জামালপুর থেকে ): জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ী উপজেলায় অবস্থিত পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির সীমাহীন অনিয়ম ও দুর্নীতিতে বেড়েই চলেছে অতিষ্ট এলাকাবাসী । উপজেলার বিভিন্ন  এলাকায় বিদ্যুৎ গ্রাহদের অভিযোগের ভিক্তিতে তদন্ত করতে গিয়ে দেখা যায় ।এলাকার প্রায় প্রতিটি গ্রাহক কোন না কোন ভাবে প্রতারিত হচ্ছে প্রতিদিন ।

বিদ্যুৎতের বিলের সাখে ব্যবহৃত ইউনিটের কোন মিল নেই  । হাজারও অভিযোগ বিদ্যুৎতের কাজে নিয়জিত মাঠ পর্যায়ের কর্মচারীদের উপর । মাঠ পর্যায়ের কর্মচারীদের লাগামহীন  দুর্নীতির হাত থেকে বাঁচার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসি ।
এ বিষয় নিয়ে  সরিষাবাড়ী পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার কাছে গেলে সেখানে সমাধান তো দুরের কথা গ্রাহককে শুনতে হয় অনেক বকাবাজ্যি । সরিষাবাড়ী পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির বিরুদ্ধে হাজার হাজার অভিযোগ দেখার কেউ নেই । ২নং পোগল দিঘা ইউনিয়নের টাকুরিয়া গ্রামের বাসিন্দা মো: মজিবর রহমান (বীরমুক্তিযোদ্ধা )অভিযোগ করে বলেন, আমি বিগত ১০ বৎসর সরিষাবাড়ী পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির একজন নিয়মিত গ্রাহক । বিগত ১০ বছরে কোন দিন বিল সংকান্ত কোন প্রকার ঝামেলা হয়নি । বর্তমান ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার আসারপর থেকে আমার সহ এলাকার অনেকের বিলের ব্যাপক সমস্যা দেখা দিয়েছে । গ্রাহক বীরমুক্তি যোদ্ধা মজিবর রহমান বলেন  এলটি সেচ হিসাব নং৪৬১/৩৭২৫ । সমস্যা শুরু গত-জুন/২০১৮ ইং মাসে আমার বিল আসে ১৬০/ (একশত ষাট)টাকা । যথা সময়ে তাহা পরিশোধ করি । পরের মাসে হঠাৎ করে বিলে আসে= ১৯,২৪০/(উনিশ হাজার দুইশত চল্লিশ) টাকা । মুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমান বলেন ৩১/১২/২০১৮ইং ডিসেম্বর মাসে একসাথে তিনটি বিল আসে যাহা একটির সাথে অন্যটির কোন মিল নেই ।৩১/১২/১৮ ডিসেম্বর ব্যবহৃত ইউনিট=১৭০ +২০=১৯০ ইউনিটের বিল =৮২০/ টাকা এবং পূর্বের ১১/১১/১৮ বাকি দেখানো হয়েছে =১৭৭৭/টাকা। যাহা পরিশোধ করার পরও লেখা হয়েছে।


 ডিসেম্বর মাসে বিলের কাগজে ২৯৬৬/টাকা দেখানো হয়েছে । ৩১/১২/২০১৮ইং তারিখের আর ও দুইটি বিল দেখানো হয়েছে যথা ক্রমে -১/ ব্যবহৃত ইউনিট-১৭০+২০=১৯০ মোট বিল =১৮৩৯/টাকা । ২/ব্যবহৃত ইউনিট ১৭০+২০=১৯০/ মোট বিল ১১৮৯/টাকা । বিল পরিশোধ করার পরও নতুন বিলের সাথে পৃরাতন বিল যোগ করে গ্রাহকের সরলতার সুযোগ নিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা । টাকুরিয়া গ্রামের আব্দুল গফুর এলটি সেচ হিসাব নং ৪৬১/৩৬৯৪ ৭/১০/২০১৮ইং মাসের বিলে লেখা ০ ইউনিট সেখানে বিল লেখাহয় ৪৯০/ ইউনিট বিল ৫৩০০/ টাকা ।৩০/১১/১৮ইং মাসে ব্যবহৃত ইউনিট ২১০/বিল লেখা হয় ৬৫৫ ইউনিট যাহার বিল লেখা হয় =৩১৫৬/টাকা। টাকুরিয়া গ্রামের চানমিয়া এলটি-বি সেচ হিসাব নং-৪৬১/৩৬৫০ গত-৩০/৪/২০১৮ইং ব্যবহৃত ইউনিট ২০+২০=৪০/ইউনিট এর বিল লেখা হয় =২২০/টাকা । ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসের বিল পরিশোধ করার পরও ২০১৮ সালে ১৩২৫/পচিশ টাকা অতিরিক্ত বিল আদায় করে ১৫১০/টাকা ।এই অবস্থায় বিলের কাগজ  নিয়ে অফিসে অভিযোগ করতে গেলে অফিসার বিভিন্ন তালবাহানা করে ।

গ্রাহকের অভিযোগের ভিক্তিতে সরিষাবাড়ী পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজারের সাথে কথা বলতে চাইলে তাহার মোবাইলে  ০১৭৬৯৪০০১৬১ফোন করা হয় ফোন রিসিভ না করায় কোন কথা হয়নি ।পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লাগাম হীন  দুর্নীতি ও অনিয়মের হাত থেকে বাচতে এলাকাবাসী প্রশাসনের নিকট সঠিক তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ জানিয়েছে ।

No comments

Powered by Blogger.